Home » প্রধান খবর » অতিথি পাখির বিচরণে শিকারির ফাঁদ

অতিথি পাখির বিচরণে শিকারির ফাঁদ

নিজস্ব প্রতিবেদক, নিউটার্ন.কম : আশ্রয়ের খোঁজে মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলা সদরের ঘোপ বাঁওড়ে দূর-দূরান্ত থেকে এসেছে নানা জাতের হাজারো অতিথি পাখি। এসব অতিথি পাখি ঘোপ বাঁওড়ে সারাদিন ঝাঁকে ঝাঁকে বিচরণ করে। তাদের কিচিরমিচির শব্দ আর পানিতে ডানা ঝাপটানোর দৃশ‌্য বাঁওড়ের নৈসর্গিক সৌন্দর্য আরও বাড়িয়ে দেয়। আর এই মনোমুগ্ধকর দৃশ্য উপভোগ করতে প্রতিদিনই ছুটে আসেন দর্শনার্থীরা। শহুরে যান্ত্রিক জীবন থেকে মুক্তি পেতে আর প্রকৃতির কাছাকাছি থেকে জীবনকে উপভোগ করতে ঘোপ বাঁওড় যেন একটি আদর্শ জায়গা। কিন্তু নৈসর্গিক সৌন্দর্যের অন্তরায় হয়ে উঠছে কিছু অসাধু পাখি শিকারি। জালসহ বিভিন্ন উপায়ে ফাঁদ পেতে তারা শিকার করে এসব পাখি।

আরও পড়ুন :

করোনা : ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে আক্রান্ত ৭৫

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তা পরিষদের নির্বাচন ১৪ জানুয়ারি

 

 

উপজেলার নালিয়ার বিল, কাতলাশুরের বিল, ইছামতির বিল, ফলিয়ার বিলসহ বিভিন্ন খাল-বিল, জলাশয় ও নদীর অববাহিকায়ও দূরান্তের এ পাখির বিচরণ লক্ষ‌্য করা যায়। বালি হাঁস, সারস পাখি, ডুবুরি ও পানকৌড়ি পাখিসহ নানা অতিথি পাখির সঙ্গে দেশীয় পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয় এসব বিলের সকাল সন্ধ‌্যা। ঘোপ বাঁওড়ের নৈসর্গিক দৃশ্য উপভোগ করতে প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকা থেকে শিশু, নারী- পুরুষসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ এর মধ্যে আসতে শুরু করেছেন।

ঘোপ বাঁওড় এলাকা ঘুরে দেখা যায়, জাল দিয়ে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার এখানে খুবই সাধারণ বিষয়। এক শ্রেণির পাখি শিকারি আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এসব পাখি শিকার করছেন। মহম্মদপুর উপজেলার বাসিন্দা ও কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী জাবের আল কোরেশ বলেন, ‘শীতের শুরুতেই বাঁওড়ে অতিথি পাখির দেখা মেলে। অতিথি পাখি ঝাঁক বেঁধে বিচিত্র স্বরে ডাকতে ডাকতে উড়ে চলা আমাদের মুগ্ধ করে তোলে। আমি এসময় বাড়ি আসি এবং ঘোপ বাঁওড়ে যাই পাখি মেলার মনোমুগ্ধকর এ দৃশ্য উপভোগ করতে।’

বাঁওড়ের পাড়ের বাসিন্দা আব্দুল ওয়াহাব বলেন, ‘অতিথি পাখি আমাদের বন্ধু। এ পাখিগুলোকে অচেনা পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিতে আমাদের বন্ধু সুলভ আচরণ করা দরকার। তাদের নিরাপত্তার দায়িত্ব আমাদের। তারা ভালো থাকলে আমাদের পরিবেশ ভালো থাকবে। তাই সকলের উচিত এই পাখিগুলো রক্ষায় এগিয়ে আসা।’ এ বিষয়ে মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রামানন্দ পাল বলেন, ‘পাখিরা শুধু প্রকৃতির শোভা বর্ধণই করে না, ভারসাম্যও রক্ষা করে। পাঁখি শিকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ ব‌্যাপারে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।’
নিউটার্ন.কম/এআর

0 Shares