Home » ধর্ম-কর্ম » অভিশাপ সম্পর্কে কতিপয় হাদিস

অভিশাপ সম্পর্কে কতিপয় হাদিস

নিউটার্ন ডেস্ক: অভিশাপ দেয়া হারাম। মিথ্যা অভিশাপকারী নিজেকেই অভিসম্পাত করে থাকে। চন্দ্র, সূর্য, বৃক্ষ, বায়ু, প্রাণী, সন্তান-সন্ততি ইত্যাদিকে অভিসম্পাত করা হারাম বা অবৈধ।

কোরআন পাঠের নিয়ম ও হাদিসঃ
১। হাদিস: হযরত ইবনে উমর (রা.) হতে বর্ণিত। রাসূল (সা.) বলেছেন, বিশ্বাসী বড় অভিশাপকারী নহে বা বিশ্বাসীর অভিশাপকারী হওয়া-উচিত নহে। (তিরমিজী)

২। হাদিস: হযরত আব্বাস (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, এক ব্যক্তির চাদর বাতাসে উড়িয়ে নিয়েছিল। এ ব্যক্তি বাতাসকে অভিশাপ দিয়েছিল। হযরত (সা.) বললেন, বাতাসকে অভিশাপ দেবে না, যেহেতু একে আদেশ করা হয়েছে। যে ব্যক্তি কোন কিছুকে অভিশাপ দেয়, সে যদি তার জন্য দায়ী না হয় তখন তা অভিশাপকারীর প্রতি ফিরে আসে। (তিরমিজী, আবু দাউদ)

৩। হাদিস: হযরত আবুদ দারদা (রা.) হতে বর্ণিত। রাসূল (সা.) বলেছেন, যখন কোন লোক কোন কিছুকে অভিশাপ দেয়, তা আকাশে উথিত হয়। আকাশের সকল দরজা তার জন্য বন্ধ হয়, ফলে তা পৃথিবীতে নিয়ে আসে। এখানেও তার জন্য সকল পথ বন্ধ হয়। অতঃপর তা দক্ষিণ ও বাম পার্শ্বে দৃষ্টিপাত করে। তা যখন কোন আশ্রয় না পায়, যাকে অভিশাপ দেয়া হয়েছে তার কাছে যায়। সে যদি তার উপযুক্ত হয় তার উপর পতিত হয়। অন্যথায় অভিশাপকারীর উপরেই পতিত হয়। (আবু দাউদ)

৪। হাদিস: হযরত আয়েশা (রা.) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ্ (সা.) বলেছেন, একদা হযরত আবু বকর (রা.) তাঁর দাসকে অভিশাপ দিতে ছিলেন। হযরত এ পথ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি হযরত আবু বকরের দিকে তাকিয়ে বললেন, কা’বার প্রভুর শপথ! অভিশাপকারীগণ এবং সত্যবাদীগণ একত্র হতে পারে না। (বাইহাকী)

৫। হাদিস: হযরত আবু হোরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত। রাসূল (সা.) বলেন, সত্যবাদী কখনও অভিশাপকারী হতে পারে না। (মুসলিম)

নিউটার্ন.কম/RP

0 Shares