Home » অর্থনীতি » আপেলের গায়ে লেখা ‘আজাদি’, ‘বুরহান ওয়ানি’!

আপেলের গায়ে লেখা ‘আজাদি’, ‘বুরহান ওয়ানি’!

 

কাঠুয়া পাইকারি বাজারের সভাপতি রোহিত গুপ্তার নেতৃত্বে জম্মুর ফলবিক্রেতারা প্রতিবাদ-বিক্ষোভের আয়োজন করেন। সেখানে পাকিস্তান-বিরোধী, সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে স্লোগান ওঠে। গুপ্তা বলেন, বাক্সগুলি কাশ্মীর থেকে এসেছে। ইংরেজি, উর্দুতে ওই বার্তা লেখা ছিল।

কাশ্মীর থেকে জম্মুতে পাঠানো আপেলের বাক্সের গায়ে লেখা ‘উই ওয়ান্ট ফ্রিডম’, ‘আই লাভ বুরহান ওয়ানি’, ‘জাকির মুসা কাম ব্যাক’ ইত্যাদি স্লোগানে চাঞ্চল্য। পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমেছে। জম্মুর কাঠুয়া জেলার ফলবিক্রেতারা এ ধরনের স্লোগান লেখা বাক্স পাওয়ার কথা জানিয়েছেন। তাঁরা হুমকি দিয়েছেন, এধরনের স্লোগান বাক্সের গায়ে থাকায় ক্রেতারা সেই আপেল কিনতে চাইছে না, এবার সরকার যদি এ ব্যাপারে জড়িত দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা না নেয়, তাঁরা কাশ্মীরের আপেল বয়কট করবেন।
জম্মুর পাইকারি বাজার থেকে কেনা আপেলের বাক্স খুলেই ফলবিক্রেতারা দেখেন, ভিতরে আপেলের গায়েও কালো মার্কার দিয়ে নিহত হিজবুল সন্ত্রাসবাদী বুরহানের নাম, আপত্তিকর সব বার্তা লিখেছে কেউ।

কাঠুয়া পাইকারি বাজারের সভাপতি রোহিত গুপ্তার নেতৃত্বে জম্মুর ফলবিক্রেতারা প্রতিবাদ-বিক্ষোভের আয়োজন করেন। সেখানে পাকিস্তান-বিরোধী, সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে স্লোগান ওঠে। গুপ্তা বলেন, বাক্সগুলি কাশ্মীর থেকে এসেছে। ইংরেজি, উর্দুতে ওই বার্তা লেখা ছিল। ‘আজাদি’, ‘গোব্যাক ইন্ডিয়া, গোব্যাক ইন্ডিয়া’, ‘মেরে জান ইমরান খান’, ‘পাকিস্তান-পাকিস্তান’ প্রভৃতি আপত্তিকর স্লোগানও দেখা গিয়েছে আপেলের গায়ে। দোষীদের বিরুদ্ধে সরকার, পুলিশ কঠোর পদক্ষেপ করুক, গুপ্তার এহেন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ডেপুটি পুলিশ সুপার মজিদ বলেছেন, আমরা তদন্ত শুরু করেছি। সেখানকার সব ফলবিক্রেতার সঙ্গেও ইতিমধ্যেই কথা বলেছে পুলিশ।

নিউটার্ন.কম/AR

0 Shares