Home » জাতীয় » কমলগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস
কমলগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস

কমলগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস

কমলগঞ্জ  প্রতিনিধি :

কমলগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই উত্তাপ ছড়াচ্ছে নির্বাচনী মাঠ জুড়ে। চুড়ান্ত লড়াইয়ে নিজেদের স্থান দখলে সরব প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। তবে নিরব অবস্থানে ভোটাররা। আসন্ন ভোটকে কেন্দ্র করে পৌর এলাকার প্রধান প্রধান সড়ক ও পাড়া-মহল্লায় মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের পোস্টারে ছেয়ে গেছে। মাইকিং, গণসংযোগে মুখরিত পুরো শহর। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ পৌরসভার সবখানে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থীর সাথে আওয়ামী লীগ এর বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় কে শেষ হাসি হাসবেন তা বলা যাচ্ছে না এখনই।

আরও পড়ুনঃ কমলগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন ভোটারদের চোখে মেয়র প্রার্থী জুয়েল কেমন?

এবি ব্যাংকের ‘এবি নিশ্চিন্ত’ প্রোডাক্ট উন্মোচন

১৯৯৯ সালে কমলগঞ্জ পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়। কমলগঞ্জ পৌরসভার আয়তন ৯.৮৩ বর্গ কিলোমিটার। ৯ টি ওয়ার্ড এবং ২৯ টি মহল্লা নিয়ে এ পৌরসভাটি গঠিত। বিগত ২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর কমলগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্টিত হয়েছিল। এ নির্বাচনে পৌর মেয়র পদের বিপরীতে প্রার্থী হয়েছিলেন ৭ জন। প্রথমবারের মতো আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ জুয়েল আহমেদ নৌকা প্রতীক নিয়ে ৩৯৯০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন এবং কমলগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামীলীগ প্রার্থী মেয়র পদটি দখলে নেয়। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্র্থী জাকারিয়া হাবিব বিপ্লব তালগাছ প্রতিকে ভোট পেয়েছিলেন ২৮০৪ ও বিএনপি’র প্রার্থী আবু ইব্রাহীম জমসেদ ধানের শীষ প্রতিকে ২১৩৩ ভোট, বিএনপি’র বিদ্রোহী প্রার্থী হাছিন আফরোজ চৌধুরী জগ প্রতিকে ৪২৬ ভোট, রফিকুল আলম ভোট পেয়েছিলেন ৮০, নজরুল ইসলাম ভোট পেয়েছিলেন ৮০ এবং মাসুক আহমদ ভোট পেয়েছিলেন ২৩টি।

এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন ৪ জন। চার প্রার্থী হলেন- আওয়ামীলীগ থেকে মনোনীত প্রার্থী মো: জুয়েল আহমেদ(নৌকা), বিএনপি থেকে মনোনীত প্রার্থী আবুল হোসেন(ধানের শীষ), আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো: আনোয়ার হোসেন(নারিকেল গাছ), আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী হেলাল মিয়া(জগ)।

 

 

0 Shares