Home » আন্তর্জাতিক » চায়ের স্বাদ পাবেন তো সাকিবরা?

চায়ের স্বাদ পাবেন তো সাকিবরা?

 

লিটন দ্রুত ফেরায় বিপদে বাংলাদেশ।

চট্টগ্রাম টেস্ট জিততে রীতিমতো রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড গড়তে হবে বাংলাদেশকে। জয়ের জন্য বাংলাদেশকে ৩৯৮ রানের লক্ষ্য দিয়েছে আফগানিস্তান। চতুর্থ ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে চাপে পড়েছে বাংলাদেশ

মাত্র পাঁচ ওভার আগেই ফিরে গেছেন লিটন দাস। সামনে ৩৯৮ রানের ভীষণ কঠিন লক্ষ্য। আজ ছাড়াও হাতে আছে আরও এক দিন। এ অবস্থায় বড় বড় বাঁক নেওয়া উইকেটে চতুর্থ ইনিংসে মাত্র ১৭ বল খেলে কোনো ব্যাটসম্যান ওভাবে তুলে মারতে যান? প্রশ্নটা মোসাদ্দেক হোসেনকে করাই যায়। জহির খানকে অযথাই ইনসাইড আউট শটে তুলে মারতে গিয়ে ‘আত্মহত্যা’ই করলেন তিনে ব্যাটিং করতে নামা মোসাদ্দেক (১২)।

মোসাদ্দেকের পর মুশফিকুর রহিম ও মুমিনুল হকও (৩) দ্রুত ফিরে যাওয়ায় ঘনীভূত হয়েছে বাংলাদেশের বিপদ। ২৫ বল খেলে রশিদ খানের বলে এলবিডব্লুর শিকার হন মুশফিক (২৩)। মাঝে এক ওভারই পর মুমিনুলকেও এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলেন রশিদ। চা বিরতিতে যাওয়ার আগে ৪ উইকেটে ১০২ রান তুলেছে বাংলাদেশ। হাতে ৬ উইকেট রেখে এখনো ২৯৬ রানে পিছিয়ে আছে তারা। এমন চাপে চায়ের স্বাদটা বিস্বাদই লাগার কথা সাকিবদের। উইকেটে রয়েছেন সাদমান ও সাকিব আল হাসান। ২০১ বলে ৩৯ রান করে এক প্রান্ত আগলে রেখেছেন সাদমান।

জিততে হলে রীতিমতো রেকর্ডই গড়তে হবে বাংলাদেশকে। ভীষণ কঠিন এ লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে বিনা উইকেটে ৩০ রান তুলে লাঞ্চ বিরতিতে গিয়েছিলেন সাদমান ইসলাম ও লিটন দাস। মাঝে আবারও বৃষ্টি নামায় দ্বিতীয় সেশনের খেলা শুরু হতে দেরি হয়। তবে খেলা শুরুর পর মাত্র তিন বল খেলতে পেরেছেন লিটন। চায়নাম্যান স্পিনার জহির খানের বলে এলবিডব্লুর ফাঁদে পড়েন তিনি। ৩০ বলে ৯ রান করে লিটন হতাশই করেন।

বাংলাদেশ নিজেদের মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৩ রান তুলেছে। বাংলাদেশের মাটিতে এটি চতুর্থ ইনিংসে যেকোনো দলের সর্বোচ্চ রান করারও রেকর্ড। সেটি এক দশক আগে ঢাকায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে। শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সে ম্যাচে ৫২১ রান তাড়া করে হেরেছিল স্বাগতিক দল। আর ঘরের মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ১০১ রান তাড়া করে জিতেছে বাংলাদেশ, ২০১৪ ঢাকা টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। সে ম্যাচে অবশ্য জিম্বাবুয়ে জয়ের জন্য ১০১ রানের বেশি লক্ষ্য দিতে পারেনি। দুই দিন হাতে রেখে ম্যাচটি জিতেছিল স্বাগতিকেরা।

এবার আসা যাক এ টেস্টের ভেন্যু জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের পরিসংখ্যানে। এ মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৩৩১ রান তুলতে পেরেছে বাংলাদেশ। এ মাঠে এটি যেকোনো দলের চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সে টেস্টে ৫১৩ রান তাড়া করতে নেমে হেরেছিল বাংলাদেশ। আর এ মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৩১৭ রান তাড়া করে জিতেছে নিউজিল্যান্ড। এটি বাংলাদেশের মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে যেকোনো দলের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডও। কিন্তু আফগানিস্তান দিয়েছে চার শ রান ছুঁই ছুঁই লক্ষ্য। অর্থাৎ জিততে হলে ঘরের মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করার নজিরই গড়তে হবে সাকিবদের।

৮ উইকেটে ২৩৭ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করেছিল আফগানিস্তান। আজ দিনের খেলার ষষ্ঠ ওভারেই রান আউট হন ইয়ামিন আহমদজাই। মাঝে এক ওভার পর শেষ উইকেট জহির খানকে ফেরান মেহেদী হাসান মিরাজ। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬০ রান অলআউট হয় আফগানিস্তান। ৫৮ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন সাকিব। প্রথম ইনিংসে ৩৪২ রান তুলেছিল আফগানিস্তান। আর বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২০৫ রানে অলআউট হয়।

0 Shares