Home » জাতীয় » জাতীয় পার্টি ছাড়লেন চিত্রতারকা সোহেল রানা
এইচ এম এরশাদের সঙ্গে সোহেল রানা (ফাইল ছবি)

জাতীয় পার্টি ছাড়লেন চিত্রতারকা সোহেল রানা

 

নিউটার্ন ডেস্ক :
হুট করে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেওয়া চিত্র তারকা মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা) একইভাবে দলটি ছাড়লেন।

এইচ এম এরশাদের গড়া দলটির সভাপতিমণ্ডলীর এই সদস্য জানিয়েছেন, গত ১০ অক্টোবর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের বরাবর রেজিস্টার্ড ডাকযোগে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন তিনি।বিডিনিউজ

ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের নেতা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ইকবাল হলের ভিপি মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা নাম নিয়ে পরে চলচ্চিত্র অঙ্গন মাতালেও আওয়ামী লীগের সংস্রবেই ছিলেন।

২০০৯ সালে তিনি আকস্মিকভাবে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হন। জাতীয় পার্টির তখনকার চেয়ারম্যান এরশাদের নির্বাচন বিষয়ক উপদেষ্টার দায়িত্বেও ছিলেন তিনি।

জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতির পদেও সোহেল রানাকে বসানো হয়েছিল। সেই পদও ছেড়েছেন তিনি।

সোহেল রানা তার সিদ্ধান্তের কারণ জানিয়ে বলেন, “তৃণমূলের কর্মীদের যথাযথ মূল্যায়ন না করা এবং দেশজুড়ে নিবেদিতপ্রাণ নেতাদের অবমূল্যায়ন করাকে আমার পদত্যাগের কারণ বলব।

“পার্টিতে এখন যারা রয়েছেন, বলছি না তারা খারাপ, কিন্তু তাদের চেয়েও নিবেদিতপ্রাণ, শিক্ষিত কর্মী দলে রয়েছেন। তাদের মূল্যায়ন করা হল না। এ নিয়ে তৃণমূলের কর্মীরাও হতাশ। আমি ব্যথিত। তাই পদত্যাগ করেছি।”

এবিষয়ে জানতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুকে ফোন করা হলেও তারা সাড়া দেননি।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের গণমাধ্যম ও রাজনৈতিক বিষয়ক সচিব সুনীল শুভ রায় বলেন, “আমি এখনও এ ব্যাপারে কিছু শুনিনি। তিনি পদত্যাগপত্র কবে পাঠিয়েছেন, তাও জানি না।”

জাতীয় পার্টি ছাড়লেও রাজনীতির ময়দান থেকে এখনই সরে যাচ্ছেন না বলে জানান এই চলচ্চিত্র তারকা।

তিনি বলেন, “কখন কী হবে, এটা তো বলা মুশকিল। আমি রাজনীতি সচেতন, রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ততা থাকবে।”

মাসুদ পারভেজের জন্ম ১৯৪৭ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। চিত্রনায়ক পরিচয়ের বাইরে তিনি প্রযোজক ও পরিচালকও।

বাংলাদেশের প্রথম পূর্ণাঙ্গ মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’ ছবির প্রযোজক হিসেবে চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন সোহেল রানা। তিনি তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।

0 Shares