Home » আন্তর্জাতিক » জার্মানিতে ৬০-এর কমবয়সীদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া স্থগিত

জার্মানিতে ৬০-এর কমবয়সীদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া স্থগিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

জার্মানি বলছে, রক্ত জমাট বাঁধার বিরল এক ঝুঁকির কারণে তারা ৬০ বছরের কম বয়স্ক লোকদের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাস-প্রতিরোধী টিকা দেয়া স্থগিত করছে।

জার্মানিতে এ পর্যন্ত মোট ২৭ লক্ষ লোককে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৩১ জনের মধ্যে একটি বিরল ধরনের রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যা দেখা গেছে।

যাদের এ সমস্যা দেখা দেয় তারা প্রায় সবাই মাঝবয়সী বা তার চেয়ে কমবয়স্ক মহিলা।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কয়েকটি দেশে এর আগেও এই একই সমস্যার কথা উল্লেখ করে সতর্কতামূলক কারণে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া স্থগিত করা হয়েছিল। কিন্তু তার কিছু দিন পর ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও যুক্তরাজ্যের ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ উভয়েই এই টিকা নিরাপদ ও কার্যকর বলে মত দেবার পর আবার এ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া শুরু হয়।

কানাডাতেও এর আগে ৫৫ বছরের কম বয়সীদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া স্থগিত করা হয়েছিল। সোমবার তারা আবার এই স্থগিতাদেশ জারির সুপারিশ করেছে।

কানাডায় এ পর্যন্ত ৩০০,০০০ লোককে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া হয়েছে তবে সেখানে রক্ত জমাট বাঁধার কোন খবর পাওয়া যায়নি।

অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলছে, তারা তাদের উপাত্তসমূহ পরীক্ষা করে দেখছে যে – ‘থ্রম্বোসাইটোপেনিয়া’ নামে এই অতি বিরল রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনা লক্ষ লক্ষ লোকের একটি জনগোষ্ঠীর মধ্যে স্বাভাবিকভাবেই যতগুলো ঘটে থাকে – তার চেয়ে বেশি পরিমাণ ঘটছে কিনা।

অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকার থেকে যেসব পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার খবর দেয়া হয়েছে টিকার সাথে তার কোন যোগাযোগ নেই বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে ।

যুক্তরাজ্যে এক হিসেব অনুযায়ী – অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা গ্রহণকারী ১ কোটি ১০ লাখ লোকের মধ্যে পাঁচ জনের ‘সেরেব্রাল সাইনাস ভেই থ্রম্বোসিস বা সিএসভিটি নামে এই রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যা দেখা গেছে। এর মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

“এ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার কোন ঝুঁকির প্রমাণ এখনো নেই”

বিবিসির স্বাস্থ্য বিষয়ক সংবাদদাতা নিক ট্রিগল বলছেন, লক্ষ লক্ষ লোককে একটি টিকা দেবার পর কিছু লোক যদি অসুস্থ হয়ে পড়ে বা মারা যায় – তাহলে তার অর্থ এই নয় যে টিকার কারণেই এটা হয়েছে। এমন হতে পারে যে তা স্বাভাবিক অন্য কোন কারণে হয়েছে।

তিনি বলছেন, জার্মানিতে যে রক্ত জমাট বাঁধার কথা বলা হচ্ছে তা অতি বিরল এবং কত লোকের এটা হতে পারে তা বলা কঠিন।

 

নিক ট্রিগল বলছেন, যেটা জানা যায় এ ধরনের রক্ত জমাট বাঁধা মহিলাদের মধ্যেই বেশি দেখা যায়, এবং জন্মনিয়ন্ত্রণের বড়ি খেলে এর ঝুঁকি বাড়ে। অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিলে যে এমন রক্ত জমাট বাঁধার ঝুঁকি বেড়ে যায় – এমন ধারণার পক্ষে এখন পর্যন্ত কোন প্রমাণ নেই।

এই টিকা নিতে’আপত্তি করবেন না’ আংগেলা মার্কেল

জার্মান চ্যান্সেলর আংগেলা মার্কেল বলেছেন, কোন টিকা বা ওষুধ নেয়া যে নিরাপদ এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ থাকা চলবে না। প্রতিটি সন্দেহ এবং প্রতিটি ব্যক্তির দৃষ্টান্তকে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে – এটা জানার মধ্যে দিয়েই টিকার ব্যাপারে মানুষের আস্থা তৈরি হয়।

আংগেলা মার্কেল – যার বয়স ৬৬ – বলেছেন, তার যখন পালা আসবে তখন অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিতে তিনি কোন আপত্তি করবেন না।

জার্মানিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জেন্স স্পাহন এবং ১৬টি রাজ্যের মন্ত্রীরা এক জরুরি বৈঠকে ৬০ বছরের কম বয়সীদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেন।বিবিসি

অবশ্য ৬০ বছরের কম বয়স্ক জার্মানরা এখনো অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিতে পারবেন – তবে ডাক্তারের বিবেচনাসাপেক্ষে, এবং টিকা গ্রহণকারীর ঝুঁকি যাচাই এবং এ ব্যাপারে গ্রহণকারীকে বিস্তৃত ব্যাখ্যা দেবার পরই।

যারা ইতোমধ্যেই অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রথম ডোজটি নিয়েছেন তাদের দ্বিতীয় ডোজ নেবার ক্ষেত্রে বাড়তি পরামর্শ এপ্রিল মাসের শেষে দেয়া হবে।

 

0 Shares