Home » ধর্ম-কর্ম » জিহ্বার সদ্ব্যবহার

জিহ্বার সদ্ব্যবহার

আল্লাহ তা’য়ালা কথা বলার জন্যে মুখগহ্বরে জিহ্বা দান করেছেন এবং এ অঙ্গটিতে কোনো হাড় নেই। অর্থাৎ জিহ্বা অত্যন্ত নরম এবং অঙ্গটি দিয়ে অন্যের কোমল কথা বলাই জিহ্বা দায়ী।  পরস্পরের সম্পর্ক বিনষ্টের ক্ষেত্রে জিহ্বার অপব্যহার সবথেকে বেশী দায়ী। হযরত সু্ফিয়ান ইবনে আব্দুল্লাহ (রা:) রাসুল (সা:) এর কাছে জানতে চাইলেন, নিজের ব্যাপারে কোন জিনিসকে সবথেকে বেশী ভয় করবো ? মহানবী (সা:) নিজের জিহ্বা ধরে বললেন “একে” । অর্থাৎ জিহ্বাকেই সবথেকে বেশি ভয় করতে হবে, তথা জিহ্বার সদ্ব্যবহার করতে হবে।

মুখের অপছন্দীনয় কথা তথা জিহ্বার অপব্যবহারিই পরস্পরের সম্পর্কে যেমন বিনিষ্ট করে তেমনি তা মানব সমাজে ভাঙ্গন ও গোলযোগও সৃষ্টি করে। ঠিক এ কারণেই ইসলাম জিহ্বা সদ্ব্যবহারের প্রতি সর্বাধিক গুরুত্ব আরোপ করাসহ এর অপব্যবহার জনিত কারণে শাস্তির কথা উল্লেখ করতে গিয়ে মানুষকে সাবধান করেছে এভাবে, ক্ষুদ্র একটি শব্দও সে উচ্চারণ কনর না, যা সংরক্ষণ করার জন্যে একজন সদা সতর্ক প্রহরী তার পাশে নিয়োজিত থাকেনা। (সূরা ক্বফ-১৮)

অর্থাৎ মানুষ মুখ থেকে যে শব্দই উচ্চারণ করুক না কেন, তা রেকর্ড করা হচ্ছেএবং বিচার দিবসে এসব কথার বিচার করা হবে। মহানবী (সা:) হযরত মায়াজ (রা:) কে নানা উপদেশ দেয়ার পর নিজের জিহ্বা ধরে বললেন, তোমার দায়িত্ব হচ্ছে একে বিরত রাখা। তিনি জানতে চাইলেন, হে আল্লাহর রাসূল (সা:) আমরা যা কিছু বলাবলি করি, সে সম্পর্কে ও কি জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে? রাসূল(সা:) বললেন, জিহ্বার উপার্জন ব্যাতীত আর কোন জিনিস মানুষকে জাহান্নামের আগুনে নিক্ষেপ করবে? (তিরমিযী)

নিউটার্ন.কম/আর জে

9 Shares