Home » খেলাধুলা » ড্র : শেষ চারে রিয়াল

ড্র : শেষ চারে রিয়াল

স্পোর্টস ডেস্ক :
ঘরের মাঠে আক্রমণাত্মক ফুটবলে কাজ এগিয়ে রাখা রিয়াল মাদ্রিদ বাকিটা সারল প্রতিপক্ষের মাঠে। মরিয়া লিভারপুলের একের পর এক আক্রমণের মুখে দারুণভাবে সামাল দিল নিজেদের রক্ষণ। অ্যানফিল্ডে ড্র করে জায়গা করে নিল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমি-ফাইনালে।

 

বুধবার রাতে কোয়ার্টার-ফাইনালের ফিরতি লেগ হয়েছে গোলশূন্য ড্র। ২০১৫-১৬ মৌসুমের পর প্রথমবার ইউরোপ সেরার মঞ্চে নকআউট পর্বের কোনো ম্যাচে গোল করতে ব্যর্থ হলো রিয়াল। প্রথম লেগে ঘরের মাঠে দলটি জিতেছিল ৩-১ গোলে।

ম্যাচ শুরুর আগে ঘটে বিব্রতকর এক ঘটনা। অ্যানফিল্ডে আসার পথে লিভারপুল সমর্থকদের ক্ষোভের মুখে পড়ে রিয়ালের টিম বাস। কিছু একটা ছুড়ে ভেঙে দেয়া হয় বাসের কাঁচ। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় ইংলিশ ক্লাবটি।

ঘরের মাঠে দ্বিতীয় মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত লিভারপুল। সাদিও মানের কাছ থেকে বিপজ্জনক জায়গায় বল পান মোহামেদ সালাহ। সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি তিনি। পা দিয়ে তার শট ঠেকিয়ে দেন থিবো কোর্তোয়া।

একাদশ মিনিটে আবার সুযোগ আসে স্বাগতিকদের সামনে। এবার জেমস মিলনারের ক্রসবার ঘেঁষে আসা শট ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ব্যর্থ করে দেন রিয়াল গোলরক্ষক।

লিভারপুলের আক্রমণের ঝাপটা সামলে ধীরে ধীরে নিজেদের গুছিয়ে নেয় রিয়াল। ম্যাচের গতি কমিয়ে রাখার দিকেই ছিল তাদের মনোযোগ। ২০তম মিনিটে গোল প্রায় পেয়েই যাচ্ছিল দলটি। করিম বেনজেমার শট তুরস্কের ডিফেন্ডার ওজান কাবাকের পা ছুঁয়ে দিক পাল্টে পোস্টে লেগে ফেরে।

প্রথম পছন্দের চার ডিফেন্ডারের তিন জনই নেই। রাইট ব্যাকে খেলেন মিডফিল্ডার ফেদে ভালভেরদে। রক্ষণ সামাল দিয়েছেন রিয়ালের প্রায় সবাই মিলেই।
এর মধ্যেও সুযোগ পায় লিভারপুল। কিন্তু ফিনিশিংয়ে ব্যর্থতায় প্রথমার্ধে জালের দেখা পায়নি তারা। ৪০তম মিনিটে খুব ভালো জায়গা থেকে শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি সালাহ। পরের মিনিটে খুব কাছ থেকে উড়িয়ে মেরে সুযোগ হাতছাড়া করেন জর্জিনিয়ো ভেইনালডাম।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই দারুণ সুযোগ পেয়ে যায় লিভারপুল। কিন্তু রবের্তো ফিরমিনো ও ট্রেন্ট অ্যালেকজ্যান্ডার-আর্নল্ডের ব্যর্থতায় কর্তোয়ার পরীক্ষাই নিতে পারেনি স্বাগতিকরা।

আক্রমণাত্মক ফুটবলে রিয়ালকে চেপে ধরে ইংলিশ চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু রক্ষণ জমাট করে প্রতি আক্রমণের কৌশল নেয় সফরকারীরা। ৬৬তম মিনিটে প্রায় এগিয়েই যাচ্ছিল তারা। অনেকটা এগিয়ে ভিনিসিউস জুনিয়রের চেষ্টা ব্যর্থ করে দেয়ার পর বেনজেমাকেও হতাশ করেন লিভারপুল গোলরক্ষক আলিসন।
অনেকটা সময় রিয়ালের অর্ধেই ছিলেন ২১ জন। তবে চাপের মধ্যেও ভেঙে পড়েনি স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নরা। ঠাণ্ডা মাথায় সামাল দিয়েছে সব আক্রমণ। জায়গা করে নিয়েছে শেষ চারে। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ চেলসি।

অন্য ম্যাচে বরুশিয়া ডর্টুমুন্ডকে আবারও হারিয়ে পেপ গুয়ার্দিওলার কোচিংয়ে প্রথমবারের মতো সেমি-ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। দুই লেগেই ইংলিশ ক্লাবটি জেতে ২-১ ব্যবধানে। ফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে তাদের প্রতিপক্ষে ফরাসি চ্যাম্পিয়ন পিএসজি।

0 Shares