Home » কৃষি » দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শুরু হয়েছে আগাম জাতের ধান কাটা মাড়াই!

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শুরু হয়েছে আগাম জাতের ধান কাটা মাড়াই!

 

নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউটার্ন.কম :
ভোরের কুয়াশা ভেদ করে উঁকি দিচ্ছে সকালের সোনামাখা রোদ। সোনামাখা রোদে দিগন্ত বিস্তৃত মাঠের হলুদ ধানের শিষ ঝিকিয়ে উঠেছে। মাঠে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা ধান মুখে তুলে উড়ে যায় পাখির ঝাঁক। পাকা ধানের ম-ম গন্ধে মাতোয়ারা কৃষকের এসব কিছুতে মন কাড়ে না, কাস্তের টানে মুঠি মুঠি ধান কেটে তুলতে হবে গোলায়— কৃষকের ধ্যান যেন এ-ই।
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে মাঠে মাঠে এখন চোখে পড়ে এ দৃশ্য। শুরু হয়েছে আগাম জাতের ধান কাটার উৎসব।জেলার অনেক কৃষক আগাম জাতের ধান আবাদ করেছেন। এরই মধ্যে অনেক খেত থেকে ধান কাটা শুরু হয়েছে। বাজারে ধানের দরও বেশ ভালো। এতে কৃষকের চোখেমুখে খুশির ঝিলিক ফুঠে উঠেছে।সবকিছু মিলিয়ে কৃষকের ঘরে আগাম ধানে আগাম আনন্দের স্বাদ ঘড়ে ঘড়ে দিসে হারায় মুগ্ধ পতিটি পরিবার

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা যায়,এবছর ১হাজার ৬৬হেক্টর জমিতে আগাম জাতের বিনা-৭,সোনা,ব্রি ধান-৫৬ ও বিভিন্ন কোম্পানীর হাইব্রিড জাতের আমন ধানের চারা রোপণ করে কৃষকরা বেশ লাভবান হয়েছেন। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় কৃষি বিভাগের সঠিক পরামর্শে অপেক্ষাকৃত উঁচু জমিতে আগাম জাতের ধান চাষ করে কৃষক এই ধান ঘরে তুলে পুনরায় অন্য ফসলের চাষ করতে পারছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এটিএম হামিম আশরাফ বলেন, বর্তমানে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে সেইসাথে কৃষি জমি কমে যাচ্ছে। ফলে জনসংখ্যার বৃদ্ধির সাথে সাথে খাদ্য চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে একই জমিতে বছরে চারটি করে ফসল উৎপাদন করতে হচ্ছে। তিনি আরও জানান,আগাম জাতের ধান কেটে ওই জমিতে রবি শষ্য আলু, ভুট্টা ও সরিষা বা আউষ ধান চাষ করতে পারছে তারা। এতে করে একই জমিতে বছরে চারটি ফসল উৎপাদন করে একদিকে যেমন কৃষক লাভবান হবেন অপরদিকে দেশের খাদ্য শস্যের চাহিদাও পূরণ করা সম্ভব হবে। এ জন্য দিনাজপুর কে বলা হয় শস্যের ভান্ডার।

নিউটার্ন.কম/RJ

36 Shares