Home » কৃষি » বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে সূর্যমুখীর বাম্পার ফলন

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে সূর্যমুখীর বাম্পার ফলন

এস.এম. সাইফুল ইসলাম কবির, বাগেরহাট : বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে সূর্যমুখীর বাম্পার ফলনে কৃষকের মাঝে তীপ্তির হাসি ফুটেছে। মাঠে মাঠে হৃদয় জড়ানো সোনালীর সমারোহ। হাজার হাজার সূর্য যেন সকলকে হাত ছানি দিচ্ছে । সূর্যমুখী তেলের ব্যাপক চাহিদরা কারণে মোরেলগঞ্জে সূর্যমুখী চাষের আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের মাঝে। পতিত জমিতে স্বল্প ব্যয়ে অধিক ফলনে লাভবান হওয়ায় এ চাষে ঝুঁকছে চাষিরা। ।
উপজেলা কৃষি দপ্ত সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে উপজেলার ৩০ হেক্টর তথা ৭৫ একর জমিতে এবারে সূর্যমুখীর চাষ হয়েছে। দৈবজ্ঞহাটি ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি সূর্যুখী চাষ করেছে কৃষক। তেল ফসল প্রকল্পের মাধ্যমে সূর্যমুখী প্রদর্শণী রয়েছে ৩২টি। এছাড়াও ১০০ চাষিকে জন প্রতি ১ কেজি করে সূর্যমুখীর বীজ প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। গাজীরঘাট গ্রামের চাষি নুরুুল ইসলাম ৬৬ শতকের ১বিঘা জমিতে সূর্যমুখী চাষ করেছেন। এতে তিনি ১০মণ ফলন পাবেন বলে ধারনা করছেন। যার মূল্য হবে ৯০ হাজার টাকা। তেল হবে ১৫০ কেজি। খরচ হয়েছে ১০হাজার টাকা। একই গ্রামের ইদ্রিস সরদার ১ একর জমিতে ফসল ফলাতে ব্যয় হয়েছে ১৫ হাজার টাকা । সূর্যমুখীর ফলন খুবই ভালো হয়েছে। চাষি আনসার সরদার, সাইফুল তালুকদার, শফিকুল সরদার, রাণী বেগম সহ একাধিক চাষি বলেন, নতুন সূর্যমুখী চাষ করে খুবই ভালো ফলন হয়েছে । তেল জাতীয় ফসলের কৃষকদের সভাপতি সাইফুল তালুকদার বলেন, এলাকার ৩০ জন কৃষকের সমন্বয়ে তাদের এ কমিটি। কৃষি অধিদপ্তরের পরামর্শে প্রত্যেক চাষি এবারই প্রথম সূর্যমুখীর চাষ করেছে, ফলনও ভালো হয়েছে।
সংশ্লিস্ট ক্লাষ্টারের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, এ এলাকায় দেশি আমন ধান ওঠার পরে পতিত জমিতে এবারে চাষিদের নতুন ফসল সূর্যমুখী চাষ ও তেলজাতীয় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য প্যাটার্ন ভিত্তিক একক প্রদর্শণী উদ্ভুদ্ধকরণসহ প্রণোদনা দেয়া হয়েছে ।
উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা মো. ওয়াসিম উদ্দিন বলেন, এ উপজেলায় এ বছরে ৭৫ একর জমিতে সূর্যমুখী চাষ হয়েছে। গত বছরে চাষিরা ৫০ একর জমিতে সুর্যমুখী চাষ করেছিলেন । অন্যান্য ভোজ্য তেলের চেয়ে সূর্যমুখী তেল আলাদা। কোলস্টেরল মুক্ত এবং প্রচুর পরিমাণ প্রাণ শক্তি থাকায় এ তেল আমাদের শরীরের দুর্বলতা কমায় ও কার্যক্ষমতা বাড়ায়। রান্নায় সয়াবিন তেলের চাইতে এ তেল দশগুন বেশি পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ। তাই কৃষকদের দিন দিন সুর্যমুখী চাষে উদ্ভুদ্ধ হচ্ছে।

0 Shares