Home » জাতীয় » বাবা গ্রেফতার মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে

বাবা গ্রেফতার মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে

 

গাজীপুরে এক বাবার বিরুদ্ধে নিজের কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার বিকেলে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর মা বাদি হয়ে বাসন থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ওই কিশোরীর বাবাকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতের নাম এমারত (৪০)। তিনি গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ইটাহাটা এলাকার আউয়ালের ছেলে। এমারত স্থানীয় ইটভাটার শ্রমিক।

জিএমপি’র বাসন থানার ওসি এ কে এম কাউসার চৌধুরী মামলার বরাত দিয়ে জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বাসন থানা এলাকার একটি পোশাক কারখানায় চাকুরি করে মামলার বাদি (এমারতের স্ত্রী)। প্রায় ১৮বছর আগে বাদির সঙ্গে এমারতের বিয়ে হয়। তারা ইটাহাটা এলাকায় বসবাস করেন। তাদের ঘরে এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। গত ২১ অক্টোবর সকাল ৬টার দিকে শয়ন কক্ষে স্বামী এবং পাশের কক্ষে ভিক্টিমকে শ্বাশুড়ির সাথে রেখে বাদি বাসা থেকে কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে যান। এক সময় শ্বাশুড়িও প্রয়োজনের তাগিদে নাতনিকে ঘরে শায়িত রেখে বাইরে চলে যান। একপর্যায়ে সুযোগ বুঝে এমারত ১৩ বছর বয়সের কিশোরী মেয়ের ঘরে ঢুকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক মেয়েকে ধর্ষণ করে। পরে বেলা ১২টায় বাসায় ফিরলে ভিক্টিম ঘটনাটি তার মাকে খুলে বলে। ধর্ষিতার মা এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে এমারত তার মেয়ে ও স্ত্রীকে ধারালো ছুরি দিয়ে হত্যার হুমকি দেয়। এসময় ভয়ে মা-মেয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে এবং বিষয়টি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অবগত করেন। তারপরও কোন ফল না পেয়ে বুধবার থানায় মামলা দায়ের করেন ভিক্টিমের মা।

ভিক্টিমকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

ওসি আরো জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদকালে এমারত নিজ মেয়েকে ধর্ষণের কথা অস্বীকার করেছে। পার্শ্ববর্তী এক বয়স্ক লোকের সাথে মেয়ের বিয়ে দিতে রাজী না হওয়ায় পুলিশের কাছে মা-মেয়ে আমার বিরুদ্ধে ধর্ষণের মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে বলে এমারত জানিয়েছে। তবে মামলার তদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

নিউটার্ন.কম/AR

45 Shares