Home » জাতীয় » বেনাপোল বন্দরে ৫দিন আটকে আছে ভারত থেকে আমদানিকৃত ২হাজার মে:টন চাউল
বেনাপোল বন্দরে ৫দিন আটকে আছে ভারত থেকে আমদানিকৃত

বেনাপোল বন্দরে ৫দিন আটকে আছে ভারত থেকে আমদানিকৃত ২হাজার মে:টন চাউল

এম এ রহিম,বেনাপোলঃ

শুল্ক(ডিউটি) জটিলতার অভিযোগে বেনাপোল স্থলবন্দরে ৫দিন ধরে আটকে আছে ভারত থেকে আমদানিকৃত ২হাজার টন চাউলের চালান। বাড়ছে ডেমারেজ-নষ্ট হচ্ছে চাউল-ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ব্যাবসায়িরা। বন্দরে ও ট্রেনে আটকা আছে চাউলের চালান।

বন্দর ও আমদানি রফতানির সাথে সংশ্লিষ্টরা জানান,দেশে চাউলের ঘাটতি মেটাতে বানিজ্য মন্ত্রনালয় থেকে কিছু আমদানিকারক প্রতিষ্টানকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চাউলের আমদানির অনুমতি দেয়। ভোমরা হিলি দর্শনা ও বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে চাউলের চালান আসে বাংলাদেশে। অন্যান্য বন্দর দিয়ে মোটা চাউল ৩৭০ডলার ও চিকন মিনিকেট৪২৫ ডলার ডিউটি দিয়ে খালাস নেন আমদানি কারকরা। বেনাপোল বন্দর দিয়ে চাউল খালাসে মোটা চাউল ৩৯০ ডলার ও চিকন চাউল ৪৩০ ডলারে খালাসের নির্দেশনা দেয় কাষ্টম। ফলে বেশী ডিউটিতে চাউল খালাস নিতে আপত্তি জানায় আমদানিরকারকরা। ফলে আটকে যায় চাউলের চালান। আমদানি কারন বেনাপোল নিপুন এন্টার প্রাইজের ৪০০ মে:টন ও রেলের আসা রাজশাহীর কপোতাক্ষ ফুড সাপ্লায়ের ১৭৭৭ মে:টন চাউল আটকে আছে ৫দিন ধরে। সুরাহা হয়নি আজও।

আরও পড়ুনঃ সুনামগঞ্জের ব্রাহ্মণগাঁওয়ে নদীর তীর কেটে ইট তৈরী করায় হুমকির মুখে কয়েকটি গ্রাম

বঙ্গবন্ধু, মহান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক স্মৃতি স্মারক বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভে জমা দেয়ার আহ্বান

বেনাপোল নিপুন এন্টার প্রাইজের প্রতিনিধি-রবিউল ইসলাম জানান ২৩ তারিখ থেকে বন্দরে আটকে আছে চাউলের চালান। এক দেশে দুরকম ডিউটি। বেশী ডিউটি দিতে নারাজ তারা। কর্তৃপক্ষের অবৈধ চাপের কারনে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন এর সুরাহা চান তারা।

নতুন কাষ্টম কমিশনারের একেক সময় মনগড়া নিয়মের কারনে হয়রানির স্বিকার হচ্ছেন ব্যাবসায়িরা। বেনাপোল বন্দর থেকে মুখ ফিরিয়ে ভোমরা সহ বিভিন্ন স্থল বন্দর দিয়ে পন্য আমদানি শুরু করেছেন আমদানি রফতানির সাথে সংশ্লিষ্টরা। ফলে হুমকির মুখে পড়ছে বেনাপোল। রাজস্ব আহরন হচ্ছে কম। অসন্তষ বিরাজ করছে ব্যাবসায়িদের মধ্যে। বেনাপোল বন্দরের অনেক শ্রমিক বেকার হয়ে পড়ার আশংকা করছেন বন্দর ব্যাবহারকারীরা। বুধবার বিকালে বেনাপোল কাষ্টম হাউজ বরাবর চাউলের ডিউটির বিষয়ে সুরাহা চেয়ে একটি লিখিত কপি প্রদান করেছে আমদানিকারক নিপুন এন্টার প্রাইজ।
ভারত থেকে আসা ড্রাইভাররা বলেন বন্দর চাউলর ট্রাক নিয়ে কয়েক দিন ধরে আটকে থাকায় পড়েছেন দুর্ভোগে। খোরাকের টাকা শেষ হয়ে গেছে। বিপাকে তারা।

চাউলের দাম দিন দিন বাড়ছে মোটা ৪১টাকা চিকন৫৫টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বন্দরে আটকে পড়েছে চাউলের চালান।আমদানি বাড়লে দাম কমবে বলে জানান ব্যাবসায়িরা

বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানিকৃত চাউল খালাস চলমান রয়েছে। আমদানিকৃত ৫শ মে:টন চাউলের মধ্যে দু দফায় ৬৪ মে: টন চাউল খালাস দেওয়া হযেছে। অন্য চাউলের চালান খালাস প্রক্রিয়াধীন বলে জানান বন্দর উপ পরিচালক আব্দুল জলিল।

বেনাপোল কাষ্টমসের অতিরিক্ত কমিশনার নিয়ামুল ইসলাম জানান চাউল আমদানির বিষয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যে সব প্রতিষ্টান অনুমতি পেয়েছে বেধে দেওয়া ডিউটি অনুযায়ি খালাস চলমান থাকার কথা। ডিউটি বেশী নেওয়ার বিষয়টি তার জানা নাই। এ ধরনের কোন অভিযোগ আসনি। আসলে বিষয়টি সুরাহা হবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তিনি।

বেনাপোল রেল ষ্টেশন মাষ্টার সাইদুজ্জামান বলেন,২৩তারিখে ১৭৭৭ মে:টন চাউলের চালান এসেছে বেনাপোলে। ডিউটি জটিলতায় আটকে ছিল। বুধবারও যায়নি চালানটি। তবে কাগজপত্র জটিলতা কেটে বৃহস্পতিবার চাউলের চালানটি বেনাপোল ছেড়ে যাবার আশার করেন তিনি।

 

0 Shares