Home » জাতীয় » মালয়েশিয়া প্রবাসীদের অনলাইনে ভোটার নিবন্ধন ৫ নভেম্বর শুরু

মালয়েশিয়া প্রবাসীদের অনলাইনে ভোটার নিবন্ধন ৫ নভেম্বর শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক, নিউটার্ন.কম : প্রথমবারের মতো প্রবাসে থাকাবস্থায় বাংলাদেশি নাগরিকদের ভোটার নিবন্ধন করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী ৫ নভেম্বর থেকে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশিদের অনলাইনে নিবন্ধনের মধ্যদিয়ে এটি শুরু হবে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ঢাকা থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ নিবন্ধন কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন।

এ সময় সরকারের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ মালয়েশিয়ায় অবস্থান করে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন।

এর আগে সিঙ্গাপুরে পরীক্ষামূলকভাবে এ কার্যক্রম শুরু করতে গিয়েও দেশটির অনুমোদন না পাওয়ায় তা পারেনি কমিশন। নির্বাচন কমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় পরিচয় অনুবিভাগের পরিচালক (অপারেশন্স) আবদুল বাতেন বলেন, প্রথমে মালয়েশিয়া ও পরে আরও কয়েকটি দেশে এ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।

তিনি জানান, অনলাইনে নিবন্ধন হলেও যোগ্য বলে যারা বিবেচিত হবে তাদের বায়োমেট্রিক আমরা ওইসব দেশে গিয়েই সংগ্রহ করব। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর বাংলাদেশ দূতাবাস আমাদের সহযোগিতা করবে।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, প্রবাসী বাংলাদেশিরা একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে নিবন্ধিত হবে। ইসি নিবন্ধিতদের তথ্য কেন্দ্রীয়ভাবে যাচাই করবে। যাচাই করে যেগুলোকে যোগ্য ও সঠিক মনে করবে ওই ভোটারদের ছবি তোলাসহ ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও চোখের মণির ছাপ (আইরিশ) গ্রহণ করা হবে। এ ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের একটি টেননিক্যাল টিম স্ব-স্ব দেশে গিয়ে এই বায়োমেট্রিক সংগ্রহ করবে।

মালয়েশিয়া ছাড়াও যুক্তরাজ্য, দুবাই ও সৌদি আরবের প্রবাসীরা এই সুযোগ পাবেন। পরে পর্যায়ক্রমে অন্যান্য দেশে অবস্থানরত বাংলাদেশীরাও এই সুযোগ পাবেন।

জানা গেছে, প্রবাসীদের ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে কমিশন ইতিমধ্যে ভোটার তালিকা বিধিমালায় প্রয়োজনীয় সংশোধন এনেছে। এতে বলা হয়েছে, বসবাসরত দেশে ইসির স্থাপিত রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্রে গিয়ে কিংবা অনলাইনে ভোটার হওয়ার আবেদন করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে তিনি সর্বশেষ যে এলাকায় বসবাস করেছেন বা নিজের অথবা বাবার বাড়ির ঠিকানায় ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করতে হবে।

পরবর্তীকালে তার আবেদন সেই এলাকার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার মাধ্যমে তদন্তের পর দশ আঙ্গুলের ছাপ, চোখের আইরিশের প্রতিচ্ছবি ও ভোটারের ছবি তুলে এনআইডি সরবরাহ করা হবে।

এর আগের রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্রে ও ইসির ওয়েবসাইটে দাবি-আপত্তির জন্য তালিকা দেয়া হবে। এ সময়ের মধ্যে কোনো ভুল থাকলে তা সংশোধন করা যাবে।

নিউটার্ন.কম/এআর

9 Shares