Home » জাতীয় » সাবেক জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেফতার

সাবেক জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেফতার

 

ওয়াহেদুর রহমান, দিনাজপুর :
দিনাজপুরে ২ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় সাবেক জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেফতারের পর জেল হাজতে প্রেরণ করে । ভুয়া চেকের মাধ্যমে সরকারি কোষাগার থেকে ২ কোটি ১৯ লক্ষ ৬৯ হাজার ৪ শত ২৮ টাকা আত্মসাৎ মামলায় সাবেক জেলা একাউন্টস এন্ড ফিন্যান্স অফিসার দুদকের হাতে গ্রেফতার হন। দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে ভুয়া আইডি তৈরী করে ও বিভিন্ন ভুয়া বিল ভাউচার তৈরি করে ২ কোটি ১৯ লক্ষ ৬৯ হাজার ৪ শত ২৮ টাকা আত্মসাৎ মামলায় সাবেক জেলা একাউন্টস এন্ড ফিন্যান্স অফিসার সাইফুল ইসলাম মন্ডলকে গ্রেফতার করেছে দুদক। বহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে দিনাজপুর দুর্নীতি দমন কমিশন জেলা কার্যালয়ে অর্থ আত্মসাৎ মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে ডাকা হয় । জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তাকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করে দুদক। সাইফুল ইসলাম মন্ডল নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার বদ্দপুর গ্রামের মৃত আলহাজ্ব আহসান হাবীব এর পুত্র । দিনাজপুর জেলার সাবেক একাউন্টস এন্ড ফিন্যান্স অফিসার ও বর্তমান নিরীক্ষা হিসাব রক্ষক অফিসার (সদর দপ্তর সংযুক্ত) হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয়, হিসাব ভবন সেগুন বাগিচা ঢাকায় সংযুক্ত। দিনাজপুর দুর্নীতি দমন কমিশন জেলা কার্যালয়ের উপ পরিচালক ও এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আবু হেনা আশিকুর রহমান জানান, গত ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ থেকে ৩১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখ পর্যন্ত জেলা একাউন্টস এন্ড ফিন্যান্স অফিসার সাইফুর রহমান মন্ডলসহ আরাও কয়েক জন কর্মকর্তার যোগসাজসে সরকারি কোষাগার থেকে ২১ টি চেকের মাধ্যমে ২ কাটি ১৯ লক্ষ ৬৯ হাজার ৪ শত ২৮ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করে। অর্থ আত্মসাতের মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে ডাকা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে সাবেক একাউন্টস এন্ড ফিন্যান্স অফিসার সাইফুল ইসলাম মন্ডলের অসংগতিপূর্ণ কথাবার্তায় তাকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয় । তিনি আরোও জানান আত্মসাৎপূর্বক দন্বণ্ডধির ৪০৯/৪২০/৪৬৮/১০৯/৪৭১/৩৪/৪৭৭(ক) তৎসহ ১৯৪৭ সালের ২ নং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা এবং মানিলন্ডরিং আইনের ২০১২ এর ৪(২) যার মামলা নং ১ দিনাজপুর কোট ইন্সপেক্টর ইসরাইল হোসেন জানান, দুর্নীতি দমন কমিশনের দায়ের করা অর্থ আত্মসাত মামলায় সাইফুল ইসলাম মন্ডলকে সিনিয়র জেলা দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হলে বিচারক আসামিকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এই মামলার অপর দুই আসামি হিসাব রক্ষণ অফিসের অডিটর মাহফুজার রহমান এবং দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ক্যাশ শাখার অফিস সহকারী আমিনুল ইসলাম বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছে। মামলার এজাহারে বলা হয়েছে এই মামলার ৩ জন আসামি পরস্পর যোগসাজোসে ভূয়া বিল প্রস্তুত করে গত ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ থেকে ৩১ জানুয়ারি ২০২১ সাল পর্যন্ত মোট ২ কোটি ১৯ লক্ষ টাকা আত্মসাত করেছেন।r

 

0 Shares