Home » জাতীয় » সুনামগঞ্জে টাঙ্গুয়ার হাওরে অবাধে চলছে পোনামাছ বিধ্বংসী হাঁসের তাণ্ডব

সুনামগঞ্জে টাঙ্গুয়ার হাওরে অবাধে চলছে পোনামাছ বিধ্বংসী হাঁসের তাণ্ডব

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :
সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের টাঙ্গুয়ার হাওরে অবাধে চলছে পোনামাছ বিধ্বংসী হাঁসের তাণ্ডব । হাওরের বিশাল জলাশয়ে অবাধে বিচরণ করছে দেশীয় হাঁসের দল। ছোট বড় ১২০টি বিলের সমাহার নিয়ে প্রায় ১০০কি.মি আয়তন বিস্তৃত টাঙ্গুয়ার হাওরের ৮০ হাজার ২৩৬ হেক্টর হলো জলাভূমি। এরই মধ্যে হাওর তীরবর্তী স্থান মন্দিয়াতা, ছিড়য়ারগাঁও, গোলাবাড়ি, ইন্দ্রপুর, বিনোদপুর ও হাতিগাদা এলাকায় দেশীয় প্রায় লক্ষাধিক হাঁসের বেশ কয়েকটি খামার রয়েছে। আর এসব হাঁসের চারণ ক্ষেত্র টাঙ্গুয়ার মৎস্য ভাণ্ডার সমৃদ্ধ বিশাল জলরাশি।

আরও পড়ুন :

সুনামগঞ্জ জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

সুনামগঞ্জে ফসল রক্ষাবাঁধের কাজ নিয়ে হতাশ জেলা প্রশাসক

জানা গেছে, স্থানীয় কিছু অসাধু চক্র হাওর বহিরাগত লোকদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে অবাধে অগণিত হাঁস বিচরণ করতে দিচ্ছে টাঙ্গুয়ার হাওরে। আর এই হাঁসগুলো হাওরের পোনামাছসহ বিভিন্ন জলজ প্রজাতি খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করছে। এতে করে মাছের বৃদ্ধি ব্যবহত হয়ে অচিরেই হাওরের মাছ বিলুপ্তি ঘটবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদিকে কৃষকদের অভিযোগ, হাওরের অসংখ্য হাঁস তাদের ফসলি জমিতে হানা দেয়। এতে করে দূষিত পানির ছোঁয়া লেগে কৃষকদের শরীরে চুলকানির উপক্রম দেখা দেয়।

এহেন পরিস্থিতিতে শারীরিক সমস্যাসহ ধানের চারা রোপন কাজে ব্যাঘাত ঘটে বলে জানান তারা। তবে কে বা কাদের মদদে হাওরে অগণিত হাঁস বিচরণ করছে- তা জানতে হাওরে হাঁস বিচরণকারী কর্মচারীদেরকে জিজ্ঞেস করলে তারা প্রতিবেদকের কাছে মুখ খুলে না। তবে হাঁস রাখার কাজে নিয়োজিত এক কর্মচারীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, হাওর তীরবর্তী মন্দিয়াতা গ্রামের সাইকুল ইসলামের ছেলে শাহ আলমগীরের তত্বাবধানে পার্শ্ববর্তী ধর্মপাশা উপজেলা থেকে অর্থচুক্তি সাপেক্ষে আনা প্রায় ১ হাজার ৯৫০টি হাঁস বিচরণ করছে টাঙ্গুয়ার হাওরে। এ ব্যাপারে শাহ আলমগীর বলেন, আমি অর্থচুক্তি সাপেক্ষে বাহির থেকে হাওরে হাঁস আনিনি। ওই হাঁসগুলো আমার নিজের। তবে এ বছর রাখার পর পরবর্তী বছর থেকে হাওরে আর হাঁস রাখবো না। তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।

 

 

0 Shares