Home » জাতীয় » সুস্বাদু গুড়ের খ্যাতি ছড়িয়েছে পুরো বেনাপোল
সুস্বাদু গুড়ের খ্যাতি ছড়িয়েছে পুরো বেনাপোল
সুস্বাদু গুড়ের খ্যাতি ছড়িয়েছে পুরো বেনাপোল

সুস্বাদু গুড়ের খ্যাতি ছড়িয়েছে পুরো বেনাপোল

এম এ রহিম, বেনাপোল :
সুস্বাদু পাটালী এবং রস ও গুড়ের জন্য বিখ্যাত যশোরের শার্শা ও বেনাপোল। শার্শা উপজেলায় প্রস্তুত ২৫হাজার খেজুর গাছ। শীত মৗসুমে গাছিরা ধারালো অস্ত্র(গাছিদা) দিয়ে খেজুর গাছের সোনালী অংশ বের করে,সুস্বাদু মিষ্টি খেজুর রস সংগ্রহ করছেন। গুড় ও পাটালী তৈরীর কাজে ব্যস্ত গাছি ও চাষিরা। শীতের আগমনে গ্রাম এলাকায় চলছে খেজুরের রস থেকে গুড়-পাটালী তৈরির উৎসব।
প্রভাতে শিশির ভেজা ঘাস আর ঘন কুয়াশার চাঁদর জানান দিচ্ছে শীতের বার্তা। এই মৌসুমে ভোর থেকেই খেজুরের রস আহরন সহ খড়কুটো জালিয়ে তৈরী করা হচ্ছে পাটালি ও গুড়। বিক্রি করা হচ্ছে কাচা রস ও গুড়। গ্রামীণ জনপদে সকালের খেজুরের রস,সন্ধ্যা রস ও সুস্বাদু গুড়-পাটালী চাহিদা ও সূখ্যাতি থাকায় বিভিন্ন এলাকা থেকে আসেন ক্রেতারা। আগাম গাছ তোলায় রস গুড়ের দাম পাওয়ায় যায় ভাল। নির্র্ভেজাল একভাড় রস ১৬০/১৮০টাকা গুড় এককেজি ২০০টাকা ও পাটালি৪৬০টাকা। রস ও গুড় বিক্রি করে স্বালম্বি হচ্ছে বর্গা-গাছি ও চাষীরা। সংসারে ফিরছে স্বচ্ছলতা খুশি তারা।
আরমান আলী ও গাছি ফারমান আলী-জাইদুল ইসলাম বলেন শীত এলেই বাড়ে ব্যাস্ততা। ৫০ থেকে ১০০টা গাছ তোলেন তারা। বিভিন্ন এলাকা থেকে এসে নিয়ে যান রস ও গুড় ও পাটালি। বাড়ী বসে বিক্রি করে আয় কওে হাজার হাজার টাকা। পুরো বছর সংসার চলেভাল্। রস গুড়ের বেশী দাম পাওয়ায় বেশী করে খেজুর গাছ লাগাচ্ছেন তারা।

রসের উদ্দেশ্যে খেজুর গাছে উঠছেন এক গাছি

আয়শা খাতুন ও জাকির হোসেন বেলেন-নতুন পাটালি বাজারে আসায় বাড়ছে ক্রেতাদের আগ্রহ। গ্রামও বাজার থেকে সংগ্রহ করছেন রস ও গুড়। শীতে অনেক বাড়ীতে চলে রস জালিয়ে পিঠা পায়েসসহ হরেক রকমের মুখরোচক খাবার তৈরির কাজ। নিজেরা ও আত্মীয় স্বজন নিয়ে খুশি মনে খান রস ও গুড়। দাম কিছুটা বেশী হলে বছরের প্রতিবছর শীতের এ আয়োজন ভাল লাগে তাদের। বিক্রেতা বাড়ার সাথে সাথে বাজারে আসছে নতুন পাটালি ও গুড়। তবে দাম বেশী। গুড় ও পাটালির আমদানি বাড়লে দাম কমবে বলে জানান ব্যাবসায়িরা।

আরও পড়ুন :

ডিসি স্যার মোক ঘর দেয়ার আশ্বাস দিছে: ফাতেমা

আনুশকা হত্যা: গ্রেপ্তার দিহানের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৗেতম কুমার শীল বলেন,শার্শা বেনাপোলে উৎপাদিত খেজুরের রস ও গুড়ের সুখ্যাতি রয়েছে সর্বত্রই। শীত মৌসুমে শুরু হয় নির্ভেজাল রস আহরনও গুড়,পাটালি তৈরীর কাজ। এলাকায় উৎপাদিত গুড় ও পাটালি নিকটস্থ বাজারে বিক্রি হচ্ছে,যশোর খুলনা ঢাকা ও চিটাগাং সহ যাচ্ছে দেশের বাহিরে- জানান স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও কৃষি কর্মকর্তা।
শার্শায় প্রায় ৩৫ হাজার গাছের মধ্যে রস আহরণকারী খেজুর গাছ রয়েছে ২৫হাজার। দিন দিন বাড়ছে পরিবেশ বান্ধব খেজুর গাছ লাভবান হচ্ছে গাছি চাষী ও ব্যাবসায়িরা। খেজুর গাছ লাগাতে উদ্বুদ্ধ করছে কৃষি বিভাগ।

0 Shares