Home » কৃষি » সুস্বাদু পাটালি,রস ও গুড়ে ভরপুর যশোরের শার্শা-বেনাপোল

সুস্বাদু পাটালি,রস ও গুড়ে ভরপুর যশোরের শার্শা-বেনাপোল

 

বেনাপোল প্রতিনিধি:
সুস্বাদু পাটালি, রস ও গুড়ের জন্য সুখ্যাতি রয়েছে যশোরের শার্শা ও বেনাপোলের। শার্শা উপজেলায় রসের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে ২৫হাজার খেজুর গাছ। শীত মৗসুমে গাছিরা ধারালো অস্ত্র(গাছিদা) দিয়ে খেজুর গাছের সোনালী অংশ বের করে,সুস্বাদু মিষ্টি খেজুর রস সংগ্রহ করছেন। গুড় ও পাটালি তৈরীর কাজে ব্যস্ত গাছি ও চাষিরা। শীত বাড়ার সাথেই বাড়ে রস ও গুড়ের চাহিদা। এসময়ে উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে চলছে খেজুরের রস থেকে গুড়-পাটালি তৈরির কাজ, বাজারেও বেড়েছে বিক্রি। ক্রেতা বিক্রেতায় ভরপুর গুড়ের বাজার। শার্শায় উৎপাদিত গুড় যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলাশহরে। সুমিষ্ট গুড়ের কদর ও সুনাম বাড়ছে দিনদিন। খাটি রস ও গুড়ের সমাহার বেনাপোল শার্শা নাভারন,শিকারপুর,গোগা,বসতপুর,পুটখালি,খলসি,ডিহিসহ বিভিন্ন এলাকায়। তবে গাছি সংকটে অনেক গাছ কাটা সম্ভব হচ্ছেনা বলে জানান চাষিরা।

প্রভাতে শিশির ভেজা ঘাস আর ঘন কুয়াশার চাঁদর জানান দিচ্ছে শীতের বার্তা। এই মৌসুমে ভোর থেকেই খেজুরের রস আহরন সহ খড়কুটো জালিয়ে তৈরী করা হচ্ছে পাটালি ও গুড়। বিক্রি করা হচ্ছে কাঁচা রস ও গুড়। গ্রামীণ জনপদে সকালের খেজুরের রস,সন্ধ্যা রস ও সুস্বাদু গুড়-পাটালির চাহিদা ও সূখ্যাতি থাকায় বিভিন্ন এলাকা থেকে আসেন ক্রেতারা।আগাম গাছ তোলায় রস গুড়ের দামও পাওয়া যায় ভাল। নির্র্ভেজাল একভাড় রস ১৭০/২০০টাকা, গুড় এককেজি ২০০টাকা ও পাটালি সাড়ে ৩শ থেকে ৪শটাকা। তবে গাছি সংকটে অনেক গাছ কাটা সম্ভব হচ্ছেনা। ফলে বাড়ছে রস ও গুড়ের দাম।
শীতের সময়অনেক বাড়িতে চলে রস জ্বালিয়ে পিঠা পায়েসসহ হরেক রকমের মুখরোচক খাবার তৈরি। জামাইকে খাওয়ানো হয় রস গুড়ের মিষ্টি পায়েস। তবে এবার দাম বেশির কারণে মায়েরা পড়ছেন বিপাকে।
শার্শা বেনাপোলে উৎপাদিত খেজুরের রস ও গুড়ের সুখ্যাতি রয়েছে সর্বত্রই। শীত মৌসুমে শুরু হয় নির্ভেজাল রস আহরনও গুড়,পাটালি তৈরীর কাজ। এলাকায় উৎপাদিত গুড় ও পাটালি বিক্রি হচ্ছে নিকটস্ত বাজার সহ যাচ্ছে,যশোর খুলনা ঢাকা ও চিটাগাং বিভিন্ন এলাকায়। দিনদিন বাড়ানো হচ্ছে খেজুর গাছ।২৫হাজার খেজুর গাছ রসের জন্য প্রস্তত বলে জানান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাসৌতম কুমার শীল।

শার্শায় প্রায় ৩৫ হাজার গাছের মধ্যে রস আহরণকারী খেজুর গাছ রয়েছে২৫হাজার।দিন দিন বাড়ছে পরিবেশ বান্ধব খেজুর গাছ লাভবান হচ্ছে গাছি চাষি ও ব্যবসায়িরা। খেজুর গাছ লাগাতে উদ্বুদ্ধ করছে কৃষি বিভাগ।শীত বাড়ার সাথে সাথেই বাজারে আসছে নতুন পাটালি ও গুড়। তবে দাম বেশি। গুড় ও পাটালির আমদানি বাড়লে দাম কমবে বলে জানান ব্যবসায়িরা।
গুড় ক্রেতা আকলিমা বেগম ও শামসুর রহমান বলেন,বেশিদাম হলেও ভালমানের গুড় পাটালি ও রস পাওয়া যাওয়ায় খুশি তারা।
আরমার গাজি ও সরিফা বেগম বলেন, এখন ভেজালগুড়ে ছেয়ে গেছে বাজার। গ্রাম এলাকার রস ও গুড়ের চাহিদা ভাল। নির্ভেজাল রসগুড় কিনতে পেরে খুশি তারা।

0 Shares