Home » অর্থনীতি » ৩ বছরে বিদেশ সফর করেছেন বিদ্যুতের ২৯৬১ কর্মকর্তা প্রকল্পের টাকায়

৩ বছরে বিদেশ সফর করেছেন বিদ্যুতের ২৯৬১ কর্মকর্তা প্রকল্পের টাকায়

 

বিগত তিন বছরে বিদেশ সফর করেছেন বিদ্যুৎ বিভাগের আওতাধীন সংস্থা বা কোম্পানির দুই হাজার ৯৬১ কর্মকর্তা। প্রশিক্ষণ, কর্মশালা ও সেমিনারসহ বিভিন্ন কারণে তাদের এই সফরের সব খরচ জুগিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগের বিভিন্ন প্রকল্প।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সংসদীয় কমিটিতে দেওয়া এক প্রতিবেদনে পাওয়া গেছে এ তথ্য। বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে দেওয়া প্রতিবেদনে দেখা গেছে, প্রতি সপ্তাহে গড়ে কমপক্ষে ১৯ কর্মকর্তা দেশের বাইরে ছিলেন। তিন বছরে বিদ্যুৎ বিভাগের ১৪টি কোম্পানি বা সংস্থার মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেডের (পিজিসিবি) ৯৮৮ কর্মকর্তা বিদেশ সফর করেছেন। সবচেয়ে কম করেছেন আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানির ১০ জন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার বলেন, ‘তালিকা দেখে কমিটির কাছে এসব সফর পুরোপুরি যৌক্তিক বলে মনে হয়নি। কমিটি উদ্বেগের বিষয়টি মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে। ভবিষ্যতে এ বিষয়ে কমিটি আরও নজরদারি করবে এমন বার্তাও তাদের দেওয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, এ বিষয়ে কমিটির পক্ষ থেকে মন্ত্রণালয়ের কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছিল। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জাস্টিফাই করার চেষ্টা করা হয়েছে। তারা বৈঠকে বলেছেন, কারিগরি বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য এবং অনেক সময় চুক্তির কারণেও এসব সফর করা হয়েছে।

কমিটির সভাপতি জানান, বিদ্যুতের কারিগরি বিষয়ে তিনি অভিজ্ঞ নন। তাই এ নিয়ে যা ঘটে গেছে তা নিয়ে আর ঘাঁটাঘাঁটি করতে রাজি নন। তবে ভবিষ্যতে এ বিষয়টি কমিটি আরও ভালোভাবে নজরদারিতে রাখবে।

প্রতিবেদনে গত তিন বছরে যেসব কর্মকর্তার তথ্য দেওয়া হয়েছে, তাদের নাম উল্লেখ নেই। বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এ তালিকায় বিদ্যুৎ বিভাগের চিহ্নিত সুবিধাভোগীরাই ঘুরেফিরে রয়েছেন। তাদের এই সফরের মাধ্যমে প্রকল্প বাস্তবায়নের দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি নেই। শুধু এই তিন বছরে নয়, এর আগের তালিকাতেও প্রায় একই ব্যক্তিদেরই নাম পাওয়া যাবে।

সংসদীয় কমিটির বৈঠকের কার্যবিবরণী থেকে জানা গেছে, টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (স্রেডা) ১৪ জন, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (বাপবিরো) ৫৪০, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের ৭৩০, পাওয়ার সেলের ৫১, নর্থ-ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লিমিটেডের (নওপাজিকো) ৮১, পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিডেটের (পিজিসিবি) ৯৮৮, ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (ডেসকো) ২৬৮, ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ওজোপাডিকো) ৮৩, আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লিমিটেডের (এপিএসসিএল) ১০, রুরাল পাওয়ার কোম্পানি লিমিডেটের (আরপিসিএল) ১২, ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ডিপিডিসি) ৯৬, কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিপিজিসিবিএল) ২৩, ইলেকট্রিসিটি জেনারেশন কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেডের (ইজিসিবি) ৪৫ এবং বি-আর পাওয়ারজেন লিমিটেডের ২০ কর্মকর্তা গত তিন বছরে বিদেশ সফর করেছেন।

বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে যেসব কর্মকর্তা এই তিন বছরে বিদেশ সফরে গিয়েছেন, তাদের চারটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। এগুলোর হচ্ছে– প্রশিক্ষণ, কর্মশালা, সেমিনার ও ইত্যাদি/অন্যান্য। এর মধ্যে প্রশিক্ষণের কাজে এক হাজার ২২৬ জন, কর্মশালায় আট, সেমিনারে ২৮ এবং ইত্যাদি/অন্যান্য কারণে এক হাজার ৭০৩ জন। মন্ত্রালয়ের তথ্যানুযায়ী অন্য কারণের মধ্যে রয়েছে প্রি-শিপমেন্ট ইন্সপেকশন (পিএসআই), ফ্যাক্টরি পরির্দশন ও মালামালের গুণগত মান যাচাই।

কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকারের সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, আবু জাহির, আছলাম হোসেন সওদাগর, মোছা. খালেদা খানম ও বেগম নার্গিস রহমান অংশ নেন।

নিউটার্ন.কম/AR

13 Shares